আটক রেখে নির্বাচন হতে পারে না : খালেদা জিয়া

প্রকাশিত: ৪:২২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৮

আটক রেখে নির্বাচন হতে পারে না : খালেদা জিয়া

ডেস্ক প্রতিবেদন
নাইকো দুর্নীতি মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির সময় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, মামলা দিয়ে আদালতের মাধ্যমে তাদের আটকে রাখা হচ্ছে। এভাবে নির্বাচন হতে পারে না।

বুধবার এ মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির সময় পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডে সাবেক কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থিত ঢাকার ৯ নম্বর বিশেষ জজ মাহমুদুল কবিরের আদালতে খালেদা জিয়া এমন মন্তব্য করেন।

এদিন বেলা ১১টা ৫৮ মিনিটে হুইল চেয়ারে করে আদালতের এজলাসে প্রবেশ করানো হয় খালেদা জিয়াকে। বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ‘একদিকে মামলা চলবে, অপরদিকে তারা (মতাসীন ১৪দল) নির্বাচন করবে, এটা তো হতে পারে না।’
শুনানির এক পর্যায়ে তিনি বলেন, ‘আমার মামলাগুলো কেন এত দ্রুত বিচার করা হচ্ছে? কয়টা মামলা দ্রুত বিচারে নিষ্পত্তি করা হয়েছে? নারায়ণগঞ্জের সাত খুন (সেভেন মার্ডার) কি দ্রুত বিচার আইনে হয়েছে?’

আদালতে খালেদা জিয়া নির্বাচনের পর অভিযোগ গঠনের বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের সময় আমার আইনজীবী ও নেতাকর্মীরা ব্যস্ত থাকবেন। কেউ আদালতে আসতে পারবেন না। এ কারণে নির্বাচনের পর শুনানির দিন ধার্য করা হোক।’
পরে আদালত আগামী ৩ জানুয়ারি অভিযোগ গঠনের পরবর্তী শুনানির দিন নির্ধারণ করেন। এ মামলায় খালেদা জিয়া আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন নিয়েছিলেন।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে খালেদা জিয়া গ্রেফতার হওয়ার পর ২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এ মামলাটি দায়ের করে। ২০০৮ সালের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে এ মামলায় অভিযোগপত্র দেয় দুদক।

মামলায় অভিযোগ করে বলা হয়, মতার অপব্যবহার করে তিনটি গ্যাসত্রে পরিত্যক্ত দেখিয়ে কানাডীয় কোম্পানি নাইকোর হাতে ‘তুলে দেওয়ার’ মাধ্যমে আসামিরা রাষ্ট্রের প্রায় ১৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকার তি করেছেন। আসামি প এ মামলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন।
শুনানি শেষে আদালত ২০০৮ সালের ৯ জুলাই এ মামলার কার্যক্রম স্থগিত করার পাশাপাশি রুল জারি করেন। এরপর বর্তমান সরকার মতায় আসার পর ২০১৫ সালের ১৮ জুন হাইকোর্ট রুল নিষ্পত্তি করে। পাশাপাশি খালেদা জিয়াকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেওয়া হয়।
পরে ওই বছরের ডিসেম্বরে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯-এর বিচারক আমিনুল ইসলাম ওই আবেদন মঞ্জুর করেন।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সাজা দেয় আদালত। সেই দিন থেকেই কারাগারে রয়েছেন তিনি।

  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর