মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক কবি আবুল বশর আনসারী জীবন মৃত্যুর সন্ধিণে

প্রকাশিত: ৪:৪৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৪, ২০১৮

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক কবি আবুল বশর আনসারী জীবন মৃত্যুর সন্ধিণে

ডেস্ক প্রতিবেদন
ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের কর্মী, সুনামগঞ্জ মহকুমা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ব্রিটেনের বাংলাদেশী কমিউনিটির প্রবীন নেতা ‘বনগাঁওর বশর মিয়া’ খ্যাত আবুল বশর আনসারী এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিণে। তিনি বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ হয়ে লন্ডনে চিকিৎসা নিচ্ছেন। জীবনের শেষ সময় বাংলাদেশে কাটাতে চান মুক্তিযুদ্ধের এ সংগঠক। মৃত্যুবরণ করলে সিলেট নগরের চৌকিদেখীতে মায়ের কবরের পাশে শুয়ে থাকার বাসনা তাঁর।

আনসারীর পারিবারিক সূত্র জানায়, সিলেট অঞ্চলের প্রবীণদের কাছে ‘বনগাঁওর বশর মিয়া’ নামে পরিচিত আবুল বশর আনসারী। বর্তমানে দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে হ্যাকনীর হমারটন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ত্রিকালদশী রাজনীতিক, কবি ও লেখক আবুল বশর আনসারীর কংগ্রেস, মুসলিম লীগ হয়ে সুনামগঞ্জ আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে রয়েছে রাজনীতির বর্নাঢ্য অতীত। ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম স্থানীয় সংগঠক হিসেবে আবুল বশর রেখেছেন সক্রিয় ভূমিকা। ব্রিটেনে বাঙালী কমিউনিটির আজকের যে সুদৃঢ় অবস্থান এর পেছনেও অন্যান্য অনেকের মত তার রয়েছে বিরাট অবদান। মৃত্যু পথে আবুল বশর আনসারী নিজের শেষ ইচ্ছা রেখে গেছেন পরিবার পরিজনের কাছে। মৃত্যুর পর যেন মায়ের কবরের পাশে তাঁর দাফন করা হয়।
তাঁর জীবনের শেষ ইচ্ছা পূরণ করতে বাংলাদেশে আসার পরিকল্পনায় ব্যস্ত রয়েছেন আনসারী পরিবারের লোকজন।

পরিবারের প থেকে আনসারীর বড় মেয়ে টাওয়ার হেমলেটস এর দুবারের কাউন্সিলর জেনিত রহমান ও ছোট ছেলে বিশিষ্ট ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকার ও ইউকে বাংলা প্রেসকাবের মেম্বার আমজাদ সোলেমান আনসারী পিতার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।
এদিকে, মুক্তিযুদ্ধের এ সংগঠককে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন বাঙালী অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটস-বো’র লেবার দলীয় এমপি রোশনারা আলী, টাওয়ার হ্যামলেটসের নির্বাহী মেয়র জন বিগস ও য্ক্তুরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান শরিফসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজন।

রোববার ১১ই নভেম্বর হ্যাকনীর হমারটন হাসপাতালে দূরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত ৯২ বছর বয়সী প্রবীণ এই নেতাকে দেখতে যান রোশনারা ও জন বিগস। এসময় আবুল বশর আনসারীর মেয়ে স্থানীয় লেবার দলীয় রাজনীতিক কাউন্সিলর জেনিত রহমান ও ছেলে আবুল হাসনাতসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

রোশনারা আলী এমপি ও মেয়র জন বিগস অসুস্থ আবুল বশর আনসারীর শয্যাপাশে বেশ কিছ্ণু দাঁড়িয়ে থেকে প্রবীণ এ কমিউনিটি নেতার শারিরীক অবস্থার সর্বশেষ খোঁজ খবর নেন।

ব্রিটিশ শাষিত অবিভক্ত ভারতের তৎকালীন তরুণ রাজনৈতিক কর্মী আবুল বশর আনসারীর রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকান্ডের অনেক গল্প মুরুব্বীদের মুখে শুনেছেন এমন মন্তব্য করে রোশনারা আলী বলেন, ‘শুধু বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামই নয়, মূলধারার ব্রিটিশ সোসাইটিতে বাংলাদেশী কমিউনিটির আজকের সমৃদ্ধ অবস্থান তৈরীতেও রয়েছে আবুল বশর আনসারীর মত কমিউনিটি নেতাদের ব্যাপক অবদান। বাংলাদেশ ও ব্রিটেন তাদের অবদান অবশ্যই শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে।’

মেয়র জন বিগস আবুল বশর আনসারীর দীর্ঘ কমিউনিটি কার্যক্রমের কথা স্মরণ করে বলেন- ‘ব্রিটিশ শাষিত অবিভক্ত ভারতের সিলেট অঞ্চলের একজন রাজনৈতিক কর্মী ছিলেন আনসারী। এটি তিনি শুনেছেন তাঁর বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত রাজনৈতিক সহকর্মীদের কাছে। তিনি প্রবীন এ নেতার সুস্থতা কামনা করেন।’

  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর