সিলেটে নিরুৎসাহিত লকডাউন : নিরব প্রশাসন

প্রকাশিত: ৭:০৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৫, ২০২১

সিলেটে নিরুৎসাহিত লকডাউন : নিরব প্রশাসন

লডাকউনের তোয়াক্কা না করে এভাবেই নগরের বিভিন্ন ফুটপাতে পসরা সাজিয়ে বসে আছে হকাররা। ছবিটি সোমবার বেলা ২টায় নগরের আম্বারখানা থেকে ক্যামেরাবন্দী করেন কামাল হোসেন মিঠু।


আব্দুল খালিক
সারাদেশের ন্যায় সিলেটেও চলছে লকডাউন। তবে, নিরুৎসাহিত এই লকডাউনের কোনো প্রভাব পড়েনি নগর জীবনে। সবকিছুই যেনো ঠিক আগের মতোই রয়ে গেছে। শুধুমাত্র বড় বড় শপিং মল ও বিপনী বিতানগুলো বাহির থেকে তালা ঝুলানো হলেও ভিতরের দৃশ্যপট অনেকটা ভিন্ন। পার্কিংয়ের রাস্তা ব্যবহার করে ভিতরে খোলা রয়েছে সীমিত দোকানপাট। অবশ্যই সেগুলো খুব জরুরী ভিত্তিতে খোলা হয়েছে এবং তা সীমিত সময়ের জন্য বলে জানিয়েছেন দোকান মালিকগণ।

 

এছাড়াও নগরের বিভিন্ন অলি-গলির দোকান খোলা থাকাতে সেখানে ভিড় করছেন স্থানীয় যুবকরা। অন্তত এক কাপ চা খাওয়ার ছলে মোবাইল হাতে বেরিয়ে পড়া যুবকদের আড্ডার জায়গাটা হয়েছে পাড়ার দোকানে। নগরের বিভিন্ন সড়কেও রয়েছে হকারদের পসরা। ভ্যান গাড়ি নিয়ে বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান করে পণ্য বিক্রি করছেন অনায়াসে। আর এসব ভ্যানকে ঘিরেও রয়েছে ক্রেতাদের ভিড়। সকাল থেকে ছোট ছোট খাবার হোটেলও খুলতে দেখা গেছে। বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে অনেককে হোটেলে বসে খেতেও দেখা গেছে। সকাল ৮টা থেকে বসেছে নিত্যপ্রয়োজনীয় ও কাঁচাপণ্যের বাজার।

 

এদিকে লকডাউনের প্রথম দিন সোমবার ভোর থেকেই নগরের বিভিন্ন সড়কে প্যাডেল রিকশা, ব্যাটারি চালিত রিকশা ও অটোরিকশা ব্যাপক যাতায়াত চোখে পড়ে। জেলা ভিত্তিক দূরবর্তী যাতায়াতের ক্ষেত্রে অটোরিকশাকে বেছে নিয়েছেন যাত্রীরা। আর কাছাকাছি যাওয়া আসার জন্য মূলত ব্যাটারি চালিত বা প্যাডেল রিকশাই ব্যবহার হচ্ছে বেশি। সেইসাথে প্রাইভেট গাড়িও চলতে দেখাগেছে নগরের বিভিন্ন সড়কে। সোমবার নগরের আম্বরখানা, চৌহাট্টা, রিকাবিবাজার, জিন্দাবাজার, কোর্ট পয়েন্ট, উপশহর, টিলাগড়, শিবগঞ্জ, নাইওরপুল, মেডিকেল, মদিনা মার্কেট, পাঠানটুলাসহ একাধিক এলাকা ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়।

 

জানা যায়, লকডাউন বাস্তবায়ন করতে রোববার সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় করেন সিলেটের বিভিন্ন মার্কেট ও শপিং মলের ব্যবসায়ী সমিতির নেতৃবৃন্দ। এসময় লকডাউনের সাত দিনই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার আহŸান জানানো হয়। সেই সাথে ক্রেতা সাধারণকে অতিরিক্ত বাজার না করারও আহŸান করেন ব্যবসায়ী নেতারা। তবে, ব্যবসায়ীদের তরফ থেকে সাত দিনের বেশি লকডাউন না দেওয়ার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়। সিদ্ধান্ত মতে সোমবার নগরের কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান না খোলার কথা থাকলেও বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এর বাস্তবতা তেমন একটা লক্ষ্য করা যায়নি।

 

এদিকে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছিল- লকডাউনে আরও কঠোর অবস্থানে থাকবে প্রশাসন। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে তারা মাঠে কাজ করবেন। প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট চালানো হবে। কিন্তু লকডাউনের প্রথম দিনে সিলেট নগরের কোথাও এমন দৃশ্য চোখে পড়েনি। নগরের বিভিন্ন স্থানে টহলে থাকা পুলিশ সদস্যদের ঠায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। তাদের সামনেই লোক সমাগম হচ্ছে। হকাররা পণ্যের পসরা সাজিয়ে ভ্যান নিয়ে নগরের বিভিন্ন সড়কে অবস্থান করছেন। ক্রেতারাও ভিড় করছেন। অনেকের মুখে মাস্ক নেই। মাস্ক ছাড়াই দিব্যি হাটছেন, কাজ করছেন ও কেনা-বেঁচা করছেন। কোনো কোনো রিকশা বা অটোরিকশা অতিরিক্ত যাত্রীও বহন করছে। পুলিশ সদস্যরা তা দেখলেও কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। এমনকি লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে কোনো তৎপরতা চালাতেও দেখা যায়নি তাদের।

 

অপরদিকে নগরের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে মাঠে নামে সিলেট সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মানুষের চলাচল নিশ্চিত করতে নগরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে অভিযান পরিচালনা করা হয়। সোমবার সিলেট নগরের বিভিন্ন সড়কে পরিচালিত এই অভিযানে নেতৃত্ব দেন সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিজেন কুমার সিংহ।

 

এসময় স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ও সরকারি বিধি নিষেধ অমান্য করায় ৯ জনকে ৯ হাজার ৯ শত টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া লকডাউনের নির্দেশনা অমান্য করে চলাচল করায় কয়েকটি সিএনজি অটোরিকশাকেও জরিমানা করা হয়।

 

এছাড়া অভিযানে মাস্ক নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে সিসিকের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ করা হয়। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করতে পথচারীদের নির্দেশনা দেওয়া হয়।

 

এবিষয়ে জানতে চাইলে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এ এইচএম মাহফুজুর রহমান জানান, সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে সিলেট মহানগর এলাকায় দুই শিফটে ৬জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছেন। উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করেছেন। আগামীকাল থেকে আরও কঠোরভাবে সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা কাজ করবেন।

  •  

সর্বশেষ ২৪ খবর