১শ ৮৪ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা করল লাফার্জ

প্রকাশিত: ৬:৫১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৩, ২০২৩

১শ ৮৪ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা করল লাফার্জ

ছাতক প্রতিনিধি
ছাতকে ব্যবসায়ী-শ্রমিকের অধিকার আদায়ের আন্দোলনকারী নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে অবশেষে ১শ’ ৮৪ কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ মামলা দায়ের করেছে লাফার্জ হোলসিম। এতে ওই সিমেন্ট কারখানার বিরুদ্ধে ক্ষোব্ধ হয়ে ফুঁসে উঠছেন ব্যবসায়ী-শ্রমিকসহ সর্বস্তরের মানুষ। কারখানাটির এমন হটকারিতায় বড় ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটারও আশংকা করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। লাফার্জ হোলসিমের অবৈধভাবে ক্রাশিং চুনাপাথর খোলাবাজারে বিক্রি ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে হুমকী স্বরূপ এ ক্ষতিপূরণ মামলা করেছে বলে মনে করছেন তারা।

 

গত বুধবার রাতে ছাতকস্থ লাইমস্টোন ইম্পোটার্স অ্যান্ড সাপ্লায়ার্স গ্রুপের কার্যালয়ে তাৎক্ষনিক এক বৈঠকে লাফার্জ হোলসিমের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে ব্যবসায়ীরা বলেন, অবিলম্বে এ মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। গত বছরের ২ নভেম্বর সুনামগঞ্জের যুগ্ম জেলা জজ আদালতে লাফার্জ হোলেসিম বাংলাদেশ লিমিটেডের পক্ষে অরুন কুমার সাহা বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করা হয়। ৩টি ধাপে ১শ ৮৪ কোটি টাকা ক্ষতিপূরন চেয়ে এ মামলা দায়ের করেছে লাফার্জ হোলেসিম কারখানা।

 

এ মামলায় ছাতক লাইমষ্টোন ইম্পোটার্স এন্ড সাপ্লায়ার গ্রুপের প্রেসিডেন্ট, ছাতক ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহবায়ক আহমদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী, ছাতক পাথর ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক, ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব হাজী আবুল হাসান ও ছাতক লাইমস্টোন ইম্পোটার্স এন্ড সাপ্লায়ার গ্রুপের জেনারেল সেক্রেটারী অরুন দাস সহ এদেরকে আসামি করেন।

 

গত বুধবার এ মামলার নামাংকিত ব্যবসায়ীদের(আসামীদের) নামে সমন প্রেরন করা হয়।

 

এ ঘটনার ব্যাপারে ব্যবসায়ী ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াহিদ মজনু, আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ আহমদ, ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল ওদুদ, সাইফুল ইসলাম, সুফি আলম সোহেল ও পৌর সভার কাউন্সিলসহ জানান, লাফার্জ হোলসিম কোম্পানী বিভিন্ন ছলচাতুরীর আশ্রয়ে এদেশ থেকে নিজেদের ফায়দা লুঠে নিচ্ছে। এ মামলাও ছলচাতুরীর একটি অংশ। মামলা-মোকদ্দমার ভয় দেখিয়ে এখানের ব্যবসায়ী-শ্রমিকের অধিকার আদায়ের আন্দোলন থেকে সরানো সম্ভব নয়। অবৈধভাবে ক্রাশিং চুনাপাথর খোলাবাজারে বিক্রির প্রতিবাদে ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ব্যনারে চলমান আন্দোলন আরো বেগবান করা হবে। তাদের চুনাপাথর খোলাবাজারে বিক্রি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত ব্যবসায়ী-শ্রমিকের এ আন্দোলন চলমান থাকবে।

 

ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে আরো জানান, গত ১৪ ডিসেম্বর পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে মন্ত্রী-এমপি পর্যায়ে এক বৈঠকে ক্রাশিং চুনাপাথর খোলাবাজারে বিক্রির ব্যাপারে লাফার্জ হোলসিম বৈধতার কোন সদোত্তর দিতে পারেনি। এ সময় কোম্পানীর পক্ষে বৈঠকে অংশ নেয়া কর্মকর্তারা তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানাতে ১০ জানাুয়ারি পর্যন্ত সময় চেয়ে নেন। শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ হুমায়ুন এমপি’র সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বৈঠকে পরিকল্পনা মন্ত্রী আলহাজ্ব এমএ মান্নান এমপি, সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক, সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়র মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সুনামগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, সংরক্ষিত আসনের এমপি শামীমা শাহরিয়ার, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানা, ছাতক পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী, ছাতক ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের আহবায়ক, ছাতক লাইমষ্টোন ইম্পোটার্স এন্ড সাপ্লায়ার গ্রুপের প্রেসিডেন্ট আহমদ শাখাওয়াত সেলিম চৌধুরী সহ শিল্প ও বানিজ্য মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব, উপসচিব, লাফার্জ হোলসিমের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাগণ সহ ছাতকের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

বর্তমান সরকারের মন্ত্রী-এমপিসহ মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে ছাতক শিল্পনগরী উপজেলার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীদের উপর ক্ষতিপূরণের নামে একটি সাজানো মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে লাফার্জ হোলসিম।

সর্বশেষ ২৪ খবর